What are Side Effects of Social Media?

Questions + Answers: ArchiveCategory: Family-SocietyWhat are Side Effects of Social Media?
Mozammel Khan Staff asked 9 months ago

side-effect-social-media

Social Media – Instant news is a great channel for information sharing and business. On the other hand – as a side effect – it accelerates human isolation, addiction, mental illness, fraud, scams, and misinformation.

Side Effects effects of Social Media:

  • Impaired Intelligence Development: Due to social media addiction, intelligence development is being impeded. The young generation is gaining popularity overnight. Creating fan followers. But, on the other hand, he is stuck in the same task. Intelligence stops at a point. Not developing expertise. The depth of thought is decreasing – which is creating a barrier to the development of intelligence.
  • Introducing gang culture: The young generation – addicted to TikTok – is giving rise to gang culture. Another group is spending time watching these things – learning is at a loss. Test results are deteriorating at an alarming rate. Without understanding the beautiful future is pushed into darkness.
  • Damaging creativity: Excessive use of social media is draining people’s creativity. Life is limited to posts, likes, shares, and comments and is becoming disconnected from the real world. Not able to go deep into any subject. . Taking over the real world. The power to think is disappearing.
  • Wastes working hours: Spending most of the day on social media makes it impossible to allocate time for other activities. What we want to see and show becomes easily possible – creating a comfort zone. We forget that – every work has a specific time which needs to be used properly. Over-indulgence is destroying the ability to understand the value of time.
  • Physically damaging: Excessive use of phones, laptops, and iPads is also creating health risks. Due to prolonged neck posture, various spinal problems occur. Due to prolonged looking at one side – strain on the eyes. As a result, headaches – and loss of vision.
  • Mentally ill: Excessive social media use is causing more mental damage than physical damage. People’s thinking power is disappearing – it is creating a kind of instability in the mental world. Fall behind in studies, results are poor. This creates stress in the family and creates distance from the family. As a result of all this, in all cases, great stress is created – which turns into mental illness.
  • Indulging in Unnecessary Relationships: Social media like Facebook has led to more sexual interactions among young children and even adults. Confuses and misleads users.
  • Leads to drug addiction: Social media makes users paranoid – they indulge in unhealthy competition. Disorients and leads astray – even leads to drugs.
  • Causes weakness in family relationships: Video, news, late night chatting with friends on unnecessary and irrelevant topics is increasing. There is a lack of bonding between family members – that’s what’s going on. As a result, the good relationship between parents, brothers, and sisters is weakening.
সোশ্যাল মিডিয়া – তাত্ক্ষণিক খবর তথ্য ভাগ করে নেওয়ার এবং ব্যবসার জন্য একটি দুর্দান্ত চ্যানেল। অন্যদিকে- পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া হিসাবে – এটি মানুষের বিচ্ছিন্নতা, আসক্তি, মানসিক অসুস্থতা, জালিয়াতি, কেলেঙ্কারী এবং বিভ্রান্তিকর তথ্যকে ত্বরান্বিত করে।

সোশ্যাল মিডিয়ার পার্শ্ব প্রতিক্রিয়া:

  • বুদ্ধিমত্তার বিকাশ বাধাগ্রস্তহচ্ছে: সামাজিক  যোগাযোগমাধ্যমের আসক্তির কারণে  বুদ্ধিমত্তার বিকাশ বাধাগ্রস্ত  হচ্ছে । তরুণ প্রজন্ম   রাতারাতি  বেশ পরিচিতি পাচ্ছে।  ফ্যান ফলোয়ার তৈরি হচ্ছে ।   কিন্তু,   অপরদিকে  একই  কাজে নিজেকে আটকে ফেলছে। মেধা একটি  জায়গায় এসে থেমে যাচ্ছে। এক্সপার্টিজ ডেভেলপ  করছে না। চিন্তার গভীরতা হ্রাস পাচ্ছে – যা কিনা মেধার বিকাশে বাধা তৈরি করছে ।
  • গ্যাং সংস্কৃতি চালু করছে : তরুণ প্রজন্ম – টিকটক আসক্তিতে মেতে থাকছে- এর ফলে গ্যাং  কালচার এর আবির্ভাব হচ্ছে । আরেকটি গ্রুপ এসব দেখে দেখেই সময় কাটাচ্ছে – পড়াশোনার ক্ষতি হচ্ছে। পরীক্ষার ফলাফল আশংকাজনকহারে খারাপ হচ্ছে।  না বুঝেই সুন্দর  ভবিষ্যৎ অন্ধকারে ঠেলে দিচ্ছে।
  • সৃষ্টিশীলতা নষ্ট হচ্ছে: সামাজিক  যোগাযোগমাধ্যম অতিরিক্ত ব্যবহারের ফলে মানুষের সৃষ্টিশীলতা নষ্ট  হচ্ছে। পোস্ট , লাইক, শেয়ার, কমেন্টের মধ্যে জীবন সীমাবদ্ধ  হয়ে বাস্তব জগৎ থেকে বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ছে ।  কোনো বিষয়ের গভীরে যেতে সক্ষম হয় না।  । বাস্তবজগৎকে গ্রাস করে নিচ্ছে । চিন্তা করার শক্তি লোপ পাচ্ছে।
  • কর্মঘণ্টা নষ্ট করে : দিনের বেশির ভাগ সময় সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ব্যয় করার ফলে অন্যান্য কাজের জন্য সময় নির্দিষ্ট করা সম্ভব  হচ্ছে  না। আমরা যা দেখতে  এবং দেখাতে চাই তা সহজে সম্ভব হয়- ফলে একটি কমফোর্ট  জোন তৈরি হয়। আমরা ভুলে যাই যে – প্রতিটি  কাজের জন্য নির্দিষ্ট সময় থাকে  যার সঠিক ব্যবহার  করা প্রয়োজন ।  অতিরিক্ত  আসক্তি  সময়ের মূল্য বোঝার ক্ষমতা  নষ্ট  করছে ।
  • শারীরিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত করে: অতিরিক্ত  ফোন, ল্যাপটপ, আইপ্যাড ব্যাবহারের ফলে স্বাস্থ্যঝুঁকিও তৈরি হচ্ছে ।  এক নাগাড়ে লম্বা সময় ঘাড় গুজে থাকার কারণে  মেরুদণ্ডের নানান সমস্যা দেখা দেয়। একদিকে বেশিক্ষণ তাকিয়ে থাকার কারণে – চোখের উপর চাপ পড়ে। ফলে মাথা ব্যাথা -এবং দৃষ্টি শক্তি নষ্ট  হয় ।
  • মানসিকভাবে অসুস্থ  করে: অতিরিক্ত সামাজিক  যোগাযোগমাধ্যম ব্যবহারের কারণে  শারীরিক  ক্ষতির চেয়ে বেশি পরিমাণে  মানসিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। মানুষের চিন্তাশক্তি লোপ পেয়ে – মনোজগতে এক ধরনের অস্থিরতা তৈরি করছে ।  পড়াশোনায় পিছিয়ে পড়ে, ফলাফল খারাপ হয় ।  পরিবারে  চাপ তৈরি এবং পরিবারের সাথে দুরত্ব  তৈরি করে।  এসবের  ফলে সব ক্ষেত্রেই  একটি  প্রচণ্ড মানসিক চাপ সৃষ্টি হয়- -যা কিনা মানসিক রোগে পরিণত  হয়।
  • অহেতুক সম্পর্কে  জড়িয়ে পড়ে: ফেসবুকের মতো সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের কারণে অল্প বয়সী ছেলেমেয়ে থেকে শুরু করে বড়দের মধ্যেও যৌন আলাপচারিতা বেশি হয়। ব্যবহারকারীদের বিকারগ্রস্ত করে তোলে এবং বিপথে ঠেলে দেয়।
  • মাদকাসক্তির দিকে পরিচালিত করে: সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ব্যবহারকারীদের বিকারগ্রস্ত করে তোলে – তারা  অসুস্থ প্রতিযোগিতায় মেতে উঠে।  বিকারগ্রস্ত করে তোলে এবং বিপথে ঠেলে দেয়- মাদকের পথেও নিয়ে যায়।
  • পারিবারিক সম্পর্কে দুর্বলতা সৃষ্টি করে: অপ্রয়োজনীয় এবং অপ্রাসঙ্গিক  বিষয় নিয়ে  ভিডিও , সংবাদ,  বন্ধুদের সাথে রাত জেগে চ্যাটিং বেড়ে যাচ্ছে।  পরিবারের সদস্যদের মধ্যে  বন্ধনের  অভাব ঘটছে- যে যার মতো চলছে । ফলে -বাবা-মা, ভাই-বোনের মধ্যে সুসম্পর্ক  দুর্বল হচ্ছে।

Read More…

How to Create Public Awareness?

Your Answer